Padma Bridge Paragraph

Padma Bridge Paragraph Writing for SSC, HSC & all Class 2022

Padma Bridge Paragraph Writing for SSC

Padma Bridge বাংলাদেশের নাগরিকদের আজীবন স্বপ্ন। এখন তা বাস্তবে আসছে। 2022 সালের শেষ নাগাদ প্রায় 91% নির্মাণ ইতিমধ্যেই শেষ হয়েছে। ২০২২ সালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পদ্মা সেতু উদ্বোধন করেন। এই পদ্মা সেতু অনুচ্ছেদে আমাদের দেশের উন্নয়নে পদ্মা সেতুর ইতিহাস, কাঠামো এবং অন্যান্য প্রভাব অন্তর্ভুক্ত থাকবে। আগামী ২৫ জুন সেতুটি উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

আপনার জন্য সুপারিশ

পদ্মা সেতু অনুচ্ছেদ Padma Bridge Paragraph

পদ্মা সেতু বাংলাদেশের দক্ষিণাঞ্চলের বিস্তৃত অগ্রগতির একটি মূল ব্যবস্থা। এই পদ্মা সেতু অনুচ্ছেদে সমস্ত গুরুত্বপূর্ণ দিক তুলে ধরা হবে। এটি পদ্মা নদীর ওপারে একটি বহুমুখী সড়ক-রেল। এটি লৌহজংকে শরীয়তপুর ও মাদারীপুরের পাশাপাশি দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলকে দেশের উত্তর ও দক্ষিণাঞ্চলের সঙ্গে সংযুক্ত করবে।

এটি 18.10-কিলোমিটার প্রস্থের একটি 6.15-কিলোমিটার-দীর্ঘ সেতু। এতে চার লেনের মহাসড়ক এবং এক লেনের রেলপথ অন্তর্ভুক্ত থাকবে। সেতুটিতে মোট 42টি স্প্যান থাকবে যার প্রতিটি 150 কিলোমিটার দীর্ঘ এবং এটি 3140 টন ওজন বহন করতে সক্ষম হবে। তাছাড়া পদ্মা সেতুতে মোট ২৬৪টি পাইল থাকবে যেখানে প্রতিটি পাইল হবে ১৫০ মিটার লম্বা এবং প্রতিটি পাইলের ১৫০ মিটারের মধ্যে ১২০ মিটার পানির নিচে থাকবে।

পদ্মা সেতুর নির্মাণকাজ শুরু হতেই ইতিহাসের এক নতুন সোনালি পাতা শুরু হয়েছে। পুরো প্রকল্পটি বাংলাদেশ সরকারের অর্থায়নে পরিচালিত হয়। সেতুটি জাতির যোগাযোগ কাঠামোর নতুন দ্বার উন্মোচন করবে। এছাড়াও, এটি 19টি দক্ষিণ জেলায় বসবাসকারী প্রায় ছয় কোটি মানুষের জীবন ও জীবনযাত্রার মধ্যে একটি প্রগতিশীল পরিবর্তন আনবে।

বাংলাদেশ আঞ্চলিক কর্পোরেশন, শিল্প খাত, কৃষি খাত এবং আরও অনেক খাতে উন্নয়ন দেখতে পাবে। পদ্মা সেতু নির্মাণের ফলে কর্মসংস্থান হ্রাসে ব্যাপক প্রভাব পড়বে। সারাদেশে যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নয়ন অনেক মানুষকে সহজে যাতায়াত করতে সাহায্য করবে এবং পরিবহন খরচও কমবে, সাধারণ জনগণের জন্য সুবিধা হবে।

মানুষ আগের মতো উদ্বেগ ছাড়াই বিভিন্ন অঞ্চলে ভ্রমণ এবং কাজ করতে আরও আগ্রহী হবে। তাছাড়া এই সেতু শিল্পায়ন, বিভিন্ন বাণিজ্যিক কার্যক্রমের পাশাপাশি পরিবহন সম্প্রসারণেও সহায়ক হবে। এগুলি বেকারত্বের হার এবং দারিদ্র্য কমানোর পাশাপাশি বিভিন্ন সরকারী খরচ কমাতে দারুণ সহায়ক হবে।

তবে পদ্মা সেতুর কারণে সবচেয়ে উল্লেখযোগ্য যে উন্নতি ঘটবে তা হলো বাংলাদেশের দক্ষিণাঞ্চলের উন্নয়ন। অনেক সুযোগের মতো, সুবিধাগুলি সহজ যোগাযোগ এবং পরিবহনের সাথে আসবে যা সামগ্রিক উন্নয়ন প্রক্রিয়ায় প্রধান ভূমিকা পালন করবে।

এক নজরে পদ্মা সেতু

পদ্মা সেতু লাইভ প্রোগ্রাম Padma Bridge Live Program

শিগগিরই পদ্মা সেতু উদ্বোধন করা হবে। বহুল কাঙ্খিত সেতুর মাওয়া প্রান্তে পৌঁছেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি সেখানে বক্তব্য রাখছেন। বক্তব্যের শুরুতে তিনি দেশবাসীর প্রতি শ্রদ্ধা ও ভালোবাসা জানান।

সকাল ৯টা ৫৫ মিনিটে তিনি হেলিকপ্টারযোগে মাওয়া সমাবেশস্থলে পৌঁছান। সেখানে প্রথম সমাবেশে ভাষণ দেবেন তিনি। মাওয়ায় সুধী সমাবেশে বক্তব্য শেষে উদ্বোধনী ফলক উন্মোচন করবেন তিনি। এটি রাজধানী ঢাকা এবং দেশের অন্যান্য অংশের সাথে দক্ষিণ ও দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের 21টি জেলার সংযোগ, যোগাযোগ এবং সম্ভাবনার অন্তহীন দুয়ার খুলে দেবে। দেশের দক্ষিণাঞ্চলের ৩৫ কোটি মানুষের স্বপ্নের সেই সেতু এখন বাস্তবে পরিণত হয়েছে।

আজ সকাল থেকেই সেতুর দুই প্রান্তে দলে দলে লোকজন আসতে শুরু করেছে। প্রধানমন্ত্রী মাওয়া প্রান্তে সেতুটি উদ্বোধন করবেন এবং গাড়িতে করে সেতু পার হবেন। অন্য প্রান্তে যান। ফলক উন্মোচনের পর দুপুর ১২টায় সমাবেশ হবে। সেখানে অন্তত ১০ লাখ লোকের সমাগম হবে বলে জানিয়েছেন আয়োজকরা। আজ সকাল থেকেই মুষলধারে বৃষ্টি হচ্ছে। দক্ষিণের বিভিন্ন এলাকা থেকে লোকজন সেখানে ভিড় জমাচ্ছেন। বিভিন্ন রঙের টি-শার্ট পরে নাচ-গানে সমাবেশে আসছেন মানুষ।

এক নজরে পদ্মা সেতু বন্ধন

হালনাগাদ:

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের প্রথম পর্বটি শনিবার পদ্মা বহুমুখী সেতুর মাওয়া প্রান্তে অনুষ্ঠিত হবে যেখানে প্রধানমন্ত্রী একটি স্মারক ডাকটিকিট ও স্যুভেনির শীট প্রকাশ করবেন। তিনি টোল প্লাজায় উদ্বোধনী ফলক এবং মুরাল-১ উন্মোচন করার কথাও রয়েছে।

প্রধানমন্ত্রী সকাল সাড়ে ৯টায় ঢাকার তেজগাঁওয়ের পুরাতন বিমানবন্দরে হেলিকপ্টারে চড়ে সকাল ১০টায় উদ্বোধনী মঞ্চে পৌঁছান।

মঞ্চে তার সঙ্গে যোগ দেন মন্ত্রিপরিষদ সচিব খন্দকার আনোয়ারুল আলম, সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের এবং পদ্মা বহুমুখী সেতু প্রকল্প পরিচালক শফিকুল আলম।

বিদেশী কূটনীতিক, মন্ত্রী এবং আওয়ামী লীগের জ্যেষ্ঠ নেতাসহ প্রায় ৩,০০০ আমন্ত্রিত অতিথি অনুষ্ঠানস্থলে সরকারি অর্থায়নে নির্মিত সেতুর উদ্বোধন উদযাপনে হাসিনার সঙ্গে যোগ দেন।

অতিথিদের মধ্যে ছিলেন সংসদের স্পিকার শিরীন শারমিন চৌধুরী, প্রধান বিচারপতি হাসান ফয়েজ সিদ্দিকী, বিশ্বব্যাংকের বাংলাদেশের কান্ট্রি ডিরেক্টর মার্সি টেম্বন, বাংলাদেশে ভারতীয় হাইকমিশনার বিক্রম কে দোরাইস্বামী, গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের ট্রাস্টি ডাঃ জাফরুল্লাহ চৌধুরী।

জাফরুল্লাহ বলেন, ১৯৭১ সালের মুক্তিযুদ্ধে অংশ নেওয়া এবং পদ্মা সেতুর উদ্বোধন দেখতে এখানে আসাটা সম্মানের।

চূড়ান্ত শব্দ

পদ্মা সেতু বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় সেতু। যেহেতু বাংলাদেশ সরকার তাদের নিজস্ব তহবিল থেকে প্রকল্পটি শুরু করেছে এবং সমস্ত চ্যালেঞ্জ কাটিয়ে ওঠা নিজেই একটি নতুন সূচনা। পদ্মা সেতু অনুচ্ছেদে আগেই উল্লেখ করা হয়েছে, এই সেতু দেশের অর্থনীতির উন্নয়নে ব্যাপক প্রভাব ফেলে। সেতুটি মোট জিডিপিতে 1.2% বৃদ্ধির পাশাপাশি দক্ষিণাঞ্চল থেকে মোট উৎপাদন 35% বৃদ্ধি পাবে।

Leave a Comment

Your email address will not be published.